টাঙ্গাইলে ড্রেনে নবজাতকের ম’রাদেহ উদ্ধার

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, বেকড়া ইউনিয়নের বেকড়া উত্তরপাড়া গ্রামের ছনির মোল্লার কুমারী মেয়ে (১৮) শনিবার (২৯ জানুয়ারি) রাত সাড়ে দশটায় দিকে পেট ব্যথা নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়। ভোর রাতে ওই মেয়ে ও তার মা উপজেলা কমপ্লেক্সে টয়লেটে দীর্ঘ সময় অবস্থান করেন। এ সময় হাসপাতালে ভর্তিকৃত রোগীরা টয়লেটে শিশুর কান্নার শব্দ শোনতে পান।

প্রায় দুই ঘণ্টা পর মা ও মেয়ে বের হয়ে সিটে আসে। রোববার সকালে ডাক্তার নিয়মিত রোগী পরিদর্শন শেষে ওই মেয়েকে ছাড়পত্র দেন ডা. কাজল পোদ্দার।
এদিকে রোববার সকাল আনুমানিক নয়টার দিকে দুজন পথ শিশু হাসপাতালের ড্রেনে নবজাতক শিশুটি দেখে লোকজন ডাকে। পরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষসহ স্থানীয়রা জড়ো হয়ে নাগরপুর থানায় খবর দিলে পুলিশ নবজাত শিশুটির লাশ উদ্ধার করে। 

এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত নার্সরা জানান, সন্তান প্রসবের বিষয়ে তারা কিছুই জানি না। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা রোকনুজ্জামান খান জানান, মেয়েটি গর্ভবতীর কথা গোপন রেখে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়। রোববার সকালে তারা ছাড়পত্র নিয়ে চলে যায়। পরে ড্রেনে নবজাতকের লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশকে অবহিত করলে পুলিশ সেখান থেকে নবজাতক শিশুর লাশ উদ্ধার করে।

নাগরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সরকার আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ড্রেন থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য উপজেলার বেকড়া উত্তরপাড়া গ্রামের ছনির মোল্লার কুমারী মেয়ে সোনিয়া ও তার পরিবারকে থানায় ডেকে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুনঃ  রানির পরে সবচেয়ে ছোট গরু হিসেবে পরিচিত টুনটুনি, উচ্চতা মাত্র ২২ ইঞ্চি ( ভিডিও )

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

দয়া করে আপনার Ad Blocker টি বন্ধ করুন

অ্যাডের টাকা দিয়েই আমাদের সাইট পরিচালনা করা হয় ‌‌। আপনি দয়া করে আপনার Ad Blocker টি বন্ধ করে আমাদেরকে সাহায্য করুন ‌।